মঙ্গলবার , সেপ্টেম্বর ২২ ২০২০
Breaking News

স্কয়ারের কৃমিনাশক এ্যালমেক্স বোতলের ভিতর কাঠের গুড়া !

স্টাফ রিপোর্টার : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় সনামধন্য ঔষধ তৈরীর প্রতিষ্ঠান স্কয়ারের এ্যালমেক্স কৃমিনাশক ঔষধের বোতলের মধ্যে কাঠের গুড়া আকৃতির ময়লা পাওয়া গেছে। উক্ত ঔষধ ব্যবসায়ীকে ফেরত দিতে এসে ঔষধ কোম্পানীর লোকজনের হাতে ক্রেতা হলেন লাঞ্ছিত। ওই কোম্পানীর এরিয়া ম্যানেজার ক্রেতাকে পুলিশে দেয়ার হুমকিও দিলেন। শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার সময় মঠবাড়িয়া পৌর শহরের ফার্মেসী রোডস্থ আরিফ মেডিকেল হলের সম্মুখে এ ঘটনা ঘটে।

ঔষধ ক্রেতা মনিরুজ্জামান হাওলাদার বলেন, আমি তিন দিন আগে আমার দুই শিশু বাচ্চাকে (১৬ মাস ও ৫বছর) কৃমিনাশক ঔষধ খাওয়ানোর জন্য আরিফ মেডিকেল হল ঔষধের দোকান থেকে এ্যালমেক্স নামক দুটি কৃমিনাশক ঔষধের বোতল ক্রয় কর বাসায় নিয়ে রাখি। শুক্রবার রাতে শিশুদের ঔষধ খাওয়ানোর জন্য একটি বোতলের মুখ খুলে দেখি কাঠের গুড়া আকৃতির মত ময়লা। এবং অপর বোতল খুলে দেখী ঔষধ ঠিক আছে। বোতলের গায়ের মেয়াদ দেখলাম তাও ঠিক আছে। মনের সন্দেহ দুর করার জন্য পরের দিন সকালে ওই ঔষধের দোকানে বোতল দুটি ফেরত দিলাম এবং দোকানী আরিফ আমাকে পরিবর্তন করে নতুন দুটি বোতল দিলেন। সাথে সাথে আরিফ ওই ঔষধ কোম্পানীর লোকদের বিষয়টি জানিয়ে খবর দিলেন।  সকাল সারে ১১টার দিকে স্কয়ার ঔষধ কোম্পানীর সেলসম্যান নিজাম উদ্দিন ও এরিয়া ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ ওই ফার্মেসীতে এলে আরিফ আমাকে মোবাইলে দোকানে আসার জন্য বলেন। আমি সাথে সাথে সেখানে যাই এবং কোম্পানীর লোকদের কাছে জানতে চাই এগুলো নষ্ট আপনারা খেয়াল করবেন না ? এগুলো খেলে তো আমার বাচ্চারা মারাও যেতে পারতো। এ সময় কোম্পানীর লোক নিজাম উদ্দিন আমার উপর চড়া ভাষায় কথা বলেন এবং এরিয়া ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ বলেন আপনি বাড়িতে বসে বোতলে এগুলো বোতলে ঢুকিয়ে নিয়ে এসেছেন, আপনাকে এখন পুলিশে ধরিয়ে দিবো। এ সময় বাজারের বিভিন্ন ব্যবসায়ীর হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। মনিরুজ্জামান হাওলাদার মঠবাড়িয়া সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে সহকারি মহরার হিসাবে কর্মরত আছেন আরিফ মেডিকেল হলের স্বত্তাধিকারী মো. আরিফ হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, অনেক সময় ওষুধের বোতলে হাওয়া ঢুকে হয়তোবা নষ্ট হতে পারে। এজন্য কোম্পানীর লোকজনের শান্তনা মুলক কথাবার্তা থাকা উচিৎ। কিন্তু কোম্পানীর লোকজন একজন ক্রেতার সাথে যে রকম আচরন করেছেন তা অত্যান্ত দুঃখজনক।

এরিয়া ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমাকে ঔষধের বোতলে কাঠের গুড়া আকুতির ময়লা দেখানো হয়েছে। তিনি বলেন, আমরা তো চাকুরি করি, ঔষধ বানাই না। কি ভাবে এটা হলো তা আমাদের জানা নাই। তবে বিষয়টি আমার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হবে। ক্রেতা মনিরুজ্জামান কে পুলিশে দেয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, তিনি আমার উপর দুইবার হামলার চেষ্টা করে ।

Comments

comments

Check Also

মঠবাড়িয়ায় আন্তর্জাতিক স্বাক্ষরতা দিবস পালিত

স্টাফ রিপোর্টার : ‘স্বাক্ষরতা অর্জন করি, ডিজিটাল বিশ^ গড়ি’ এ শ্লোগানকে সামনে রেখে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় …

ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীকে মানব কল্যাণ ঐক্য পরিষদের চিকিৎসা সহায়তা প্রদান

স্টাফ রিপোর্টার : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় অলাভজনক সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন মানব কল্যাণ ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে ক্যান্সারে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!