শুক্রবার , সেপ্টেম্বর ২৫ ২০২০
Breaking News

রুস্তম আলী ফরাজীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে যুবলীগ-স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা

ডেস্ক রিপোর্ট : পিরোজপুর-৩ (মঠবাড়িয়া) আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ডা. রুস্তম আলী ফরাজীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মঠবাড়িয়া থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। সংসদ সদস্যের ব্যক্তিগত সহকারী মাসুম বিল্লাহ বাদী হয়ে স্থানীয় ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের কয়েজন নেতাসহ নাম উল্লেখ করে ১০ জন ও অজ্ঞাতনামা আরও ২০/২৫ জনের বিরুদ্ধে এই মামলা দায়ের করেন। মঠবাড়িয়া থানার ওসি তদন্ত মাজহারুল আমীন মামলার তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তবে সংসদ সদস্যকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ অস্বীকার করেছে ছাত্রলীগ-যুবলীগ।
প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে ওসি তদন্ত মাজহারুল জানান, জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উদযাপন উপলক্ষে মঠবাড়িয়া উপজেলা মৎস্য বিভাগ সোমবার সাপলেজা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় মিলনায়তনে এক আলোচনা সভার আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা. রুস্তম আলী ফরাজী। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি মঠবাড়িয়ায় মাদক সেবন ও বিক্রির সঙ্গে ছাত্রলীগ-যুবলীগের জড়িত থাকার অভিযোগ করেন। এ সময় সভায় হট্টগোল শুরু হয়। এক পর্যায়ে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের উপস্থিত নেতাকর্মীরা তাকে অবরুদ্ধ করে ফেলে। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে।
এ ঘটনার পর সংসদ সদস্যের ব্যক্তিগত সহকারী মাসুম বিল্লাহ বাদী হয়ে মঠবাড়িয়া থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় সাপলেজা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সওকাতুল আলম সুমন, সাধারণ সম্পাদক তারিকুল ইসলাম লিমন, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নুরুল আমীন রাসেল, সাধারণ সম্পাদক ফারুক পাহলোয়ান, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সমীর সাহা, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল মোল্লাসহ ১০ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাতনামা আরও ২০/২৫ জনকে আসামি করা হয়। এর আগে গত ৬ জুলাই সংসদ সদস্য রুস্তমের অনুসারী ফারুক হোসেন বাদী হয়ে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় যে মামলা করেছিলেন, তার ১নং আসামি ছিলেন ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নুরুল আমীন রাসেল।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সংসদ সদস্য ডা. রুস্তম আলী ফরাজী বলেন, ‘সাপলেজার ইউপি চেয়ারম্যান মিরাজ মিয়া জেলেদের তিন মাসের চাল আত্মসাৎ করেছেন। আমি এ বিষয়ে কথা বলেছি। আমি ডাকাতদের বিরুদ্ধে কথা বলেছি। আমি মাদকের বিরুদ্ধে কথা বলেছি। এ কারণেই স্থানীয় পলাশ, জাহিদুল, ইকবাল মোল্লা, ফয়সাল, সাইফুল, সমীর, ফারুক পাহলোওয়ান সুমনসহ কয়েকজন দা-কুঠার নিয়ে আমাকে হত্যার চেষ্টা চালায়। তারা আমার অনুসারী জয়নাল ও আনসারকে মারধর করে।’ কোনও সংগঠনকে নিয়ে তিনি বক্তব্য রাখেননি বলে দাবি করেন। তিনি আরও বলেন, ‘ঘটনাস্থলে পুলিশ না থাকলে হামলাকারীরা আমাকে মেরে ফেলত।’
সংসদ সদস্যের সব অভিযোগ অস্বীকার করছেন স্থানীয় ছাত্রলীগ-যুবলীগ নেতারা। সাপলেজা ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মিরাজ মিয়া বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ডা. রস্তুম আলী ফরাজী মৎস্য বিভাগ আয়োজিত সভায় ছাত্রলীগ ও যুবলীগকে সন্ত্রাসী, ডাকাত, ভূমিদস্যু বলায় ছাত্রলীগ ও যুবলীগ কর্মীরা তাকে সকাল সাড়ে ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত অবরুদ্ধ করে রাখে। এ সময় তার বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়। কিন্তু সংসদ সদস্য তাকে হত্যাচেষ্টার যে অভিযোগ এনেছেন, তা একেবারেই ভিত্তিহীন।’
সাপলেজা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সওকাতুল আলম সুমন বলেন, ‘সকাল ১১টার দিকে আমি ও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লিমনসহ কয়েকজন বাজার এলাকায় বসেছিলাম। স্কুলের দুই শিক্ষার্থী এসময় আমাদের ফোন করে জানায় যে ক্লাস বন্ধ করে সংসদ সদস্য সভা করছেন। এরপর আমরা স্কুলের দিকে যাই। সেখানে বেশ কয়েকজন অভিভাবকও ছিলেন। অভিভাবকরা অভিযোগ করেন, জেলেদের ছাড়াই মৎস্য সপ্তাহের আয়োজন করেছে মৎস্য বিভাগ। তারা বলেন, আমরা সন্তানদের স্কুলে পাঠিয়েছি পড়ালেখা করাতে, সভায় যোগ দিতে নয়।’
মঠবাড়িয়া থানার ওসি (তদন্ত) মাজহারুল আমীন বলেন, সংসদ সদস্যের ব্যক্তিগত সহকারী মাসুম বিল্লাহ বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় হত্যাচেষ্টা, হুমকি ও চুরির অভিযোগ করা হয়েছে। মামলার আসামির তালিকায় স্থানীয় ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের কয়েকজন নেতার নাম আছে।’

[সূত্র : বাংলা ট্রিবিউন]

Comments

comments

Check Also

মঠবাড়িয়ায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

স্টাফ রিপোর্টারঃ পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে মালেক সিকদার (৪৮) নামে …

বন্ধুর স্ত্রীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার

স্টাফ রিপোর্টারঃ  বন্ধুর স্ত্রীকে ধর্ষণ ও ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করার অভিযোগে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার রবিউল ইসলাম …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!