মঠবাড়িয়াশুক্রবার , ৭ জুলাই ২০১৭
  1. আন্তর্জাতিক
  2. ইতিহাস-ঐতিহ্য
  3. খেলাধুলা
  4. জাতীয়
  5. প্রতিবেদন
  6. ফটো গ্যালারি
  7. বিচিত্র খবর
  8. বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি
  9. বিনোদন
  10. ভিডিও গ্যালারি
  11. মঠবাড়িয়ার খবর
  12. মতামত
  13. মুক্তিযুদ্ধ
  14. রাজনৈতিক খবর
  15. শিক্ষাঙ্গন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মঠবাড়িয়া পৌরসভার প্রধান সড়কটির আড়াই কিলোমিটার খানাখন্দে ভরা : জনদুর্ভোগ

Mathbariaprotidin
জুলাই ৭, ২০১৭ ১:৩৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ডেস্ক রিপোর্ট : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌর শহরের প্রধান সড়কের আড়াই কিলোমিটার জায়গাজুড়ে সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য খানাখন্দ। সেখানে বৃষ্টির পানি জমে থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে পথচারী ও বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের। আবার গর্তে রিকশা, অটোরিকশা ও ভ্যানের চাকা আটকে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। বেহাল সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন কয়েকশ’ বাস-ট্রাকসহ দূরপাল্লার যানবাহন ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে।
গত বুধবার সকালে সরেজমিনে দেখা যায়, চরখালী-মঠবাড়িয়া সড়কের মঠবাড়িয়া পৌরসভার বহেরাতলা আলিম সিনেমা হল থেকে পাথরঘাটা বাসস্ট্যান্ড এলাকার নাজিরবাড়ি পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটারের অনেক স্থানে পিচ ও খোয়া উঠে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। পিরোজপুর বাসস্ট্যান্ড, উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন আইনজীবী কল্যান সমিতি, মঠবাড়িয়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শেরেবাংলা পাঠাগার, বেসিক ব্যাংক ভবন, থানা ভবন, পাথরঘাটা বাসস্ট্যান্ড ও নাজিরবাড়ি এলাকায় বড় বড় গর্ত রয়েছে। এসব গর্তে বৃষ্টির পানি জমে রয়েছে।
পৌর শহরের ব্যবসায়ী আরিফ হোসেন বলেন, মঠবাড়িয়া প্রথম শ্রেণির পৌরসভা। অথচ শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি দেখলে মনে হয় না এটা পৌর শহরের কোনো সড়ক। কয়েক মাস আগে বেহাল হয়ে পড়লেও কর্তৃপক্ষ সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেয়নি। বর্ষায় সড়কটিতে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।
মঠবাড়িয়া কে এম লতিফ ইনস্টিটিউশনের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র মো. ইমন বলে, বিদ্যালয়ে যাওয়ার সময় সড়কের গর্তের কাদাপানিতে পোশাক নষ্ট হয়ে যায়। বৃষ্টি হলে ভোগান্তি আরও বাড়ে।
অটোরিকশাচালক আল আমিন বলেন, সড়কের গর্তে রিকশার চাকা পড়ে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। কিন্তু কেউ সড়ক সংস্কারের ব্যবস্থা নিচ্ছে না।
পৌরসভার সবুজনগর গ্রামের কামাল হোসেন বলেন, গর্তের কারণে সড়কটি দিয়ে রিকশায় যাতায়াত করতে কষ্ট হয়। আবার কাদাপানিতে হেঁটে চলতে গিয়ে পোশাক নষ্ট হয়ে যায়। সড়কটি দ্রুত সংস্কার করা প্রয়োজন।
কয়েকজন বাসচালক বলেন, সড়কটি দিয়ে মঠবাড়িয়া ও পাথরঘাটা উপজেলায় যাত্রীবাহী বাস, মাছ ও পণ্যবাহী ট্রাকসহ দূরপাল্লার ভারি যানবাহন চলাচল করে। পিচ ও খোয়া উঠে যাওয়ায় গর্তে পানি জমে রাস্তার মাটি নরম হয়ে গেছে। দ্রুত সংস্কার করা না হলে সড়কটি ভারি যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়বে।
মঠবাড়িয়া পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী আবদুস সালেক বলেন, নয় মাস আগে সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ সড়কটি মেরামত করেছিল। মেরামতের কয়েক মাস যেতে-না যেতেই সড়কের বিভিন্ন স্থানে পিচ ও খোয়া উঠে গর্ত হয়ে গেছে। সড়কটি সওজের অধীন হওয়ায় পৌরসভা ইচ্ছা করলেই সংস্কার করতে পারে না। সড়কটি সংস্কারের জন্য সওজের অনুমতি চেয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে। অনুমতি পেলে সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হবে।
সড়ক ও জনপথ বিভাগ পিরোজপুর কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. নজরুল ইসলাম বলেন, মঠবাড়িয়া পৌরসভা থেকে চিঠি এখনও পাইনি। তবে একনেকের সভায় চরখালী-মঠবাড়িয়া-পাথরঘাটা সড়কটি প্রশস্তকরণ ও সংস্কারের জন্য একটি প্রকল্প অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। প্রকল্পটি অনুমোদন পেলে সড়কটি সংস্কার করা হবে।

[প্রথম আলোর পিরোজপুর প্রতিনিধি ফয়সাল প্রিন্সের করা এই প্রতিবেদনটি প্রথম আলো থেকে নেওয়া হয়েছে।]

 

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।
error: Content is protected !!