শুক্রবার , আগস্ট ৭ ২০২০
Breaking News

মঠবাড়িয়ায় সাংসদ রুস্তম আলীর সঙ্গে আ’লীগ নেতাকর্মীদের বিরোধে অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কা

ডেস্ক রিপোর্ট : পিরোজপুরে মঠবাড়িয়া উপজেলায় স্বতন্ত্র সাংসদ রুস্তম আলী ফরাজীর সঙ্গে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের বিরোধে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতিসহ অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। সাংসদের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা প্রায়ই মিছিল-সমাবেশ করছেন। সর্বশেষ ৬ জুলাই যুবলীগের এক নেতার বিরুদ্ধে সাংসদকে ফেসবুকে কটূক্তি করায় তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা এবং গত সোমবার সাংসদকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের ১০ নেতার বিরুদ্ধে মামলা করায় পরিবেশ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দুপুরে উপজেলার সাপলেজা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এক সভায় ছাত্রলীগ ও যুবলীগকে ‘চোর-ডাকাত’ বলায় সাংসদ রুস্তম আলী ফরাজীকে অবরুদ্ধ করে রাখেন ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা-কর্মীরা। এ ঘটনার পর সাংসদকে হত্যার উদ্দেশ্যে অতর্কিত হামলার অভিযোগে থানায় মামলা হয়। সাংসদের একান্ত সচিব মাসুম বিল্লাহ বাদী হয়ে সাপলেজা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. পলাশকে প্রধান আসামি করে স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ নেতাসহ ১০ জনকে আসামি করে মামলা করেন। এ ঘটনার প্রতিবাদে মঙ্গলবার বিকেলে মঠবাড়িয়া শহরে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের উদ্যোগে প্রতিবাদ মিছিল-সমাবেশ হয়েছে।

সাপলেজা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সওগাতুল আলম বলেন, সাংসদ রুস্তম আলী ফরাজীকে লাঞ্ছিত বা হামলা করা হয়নি। তিনি মিথ্যা মামলা দিয়েছেন।

রুস্তম আলী ফরাজী ছাত্রলীগ ও যুবলীগকে চোর-ডাকাত বলার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সাপলেজা ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মিরাজ মিয়া জেলেদের সহায়তার চাল বিতরণে অনিয়ম করায় তিনি তাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে কথা বলেছেন। এ কারণে মিরাজ মিয়ার নেতৃত্বে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা-কর্মীরা হত্যার উদ্দেশ্যে তার ওপর হামলা করেন।

তবে মিরাজ মিয়া বলেন, ছাত্রলীগ-যুবলীগ কোনো হামলা করেনি। শিক্ষার্থীদের নিয়ে সাংসদ সভা করায় অভিভাবকেরা লেখাপড়া বাদ দিয়ে সভা করার প্রতিবাদ করেছেন।

বিরোধের সূত্রপাত : রুস্তম আলী ফরাজী সপ্তম জাতীয় সংসদে জাতীয় পার্টি ও অষ্টম জাতীয় সংসদে বিএনপির সাংসদ ছিলেন। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে পিরোজপুর-৩ (মঠবাড়িয়া) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আনোয়ার হোসেনকে হারিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী রুস্তম আলী ফরাজী নির্বাচিত হন। এ নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের একটি পক্ষের সমর্থন পান। একই বছর উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আশরাফুর রহমান উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এরপর থেকে আশরাফুর রহমানের সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে পড়েন রুস্তম আলী ফরাজী। ২০১৪ সালের ১৫ জুলাই উপজেলার সাফা ডিগ্রি কলেজে এক কর্মিসভায় সাংসদ আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সমালোচনা করেন। সভা শেষে সাংসদের উপস্থিতিতে তাঁর সমর্থক সগির মল্লিক নামের এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে বাঁ হাতের রগ কেটে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। ২১ জুলাই স্থানীয় ডাকবাংলোতে সাংসদের কর্মিসভায় ছাত্রলীগ ও যুবলীগ হামলা করে। ২০১৫ সালের ২২ অক্টোবর যুবলীগের বাধায় সাংসদ উপজেলার কাকড়াবুনিয়া গ্রামে কাকড়াবুনিয়া মহিলা কলেজ উদ্বোধন অনুষ্ঠান পণ্ড হয়ে যায়। ২০১৬ সালের ২৬ অক্টোবর উপজেলার দাউদখালী ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফুর রহমানকে অতিথি না করায় সাংসদের সভামঞ্চ ও ভবনের নামফলক ভাঙচুর করে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। একনেক সভায় চরখালী-মঠবাড়িয়া-পাথরঘাটা সড়কটি উন্নয়ন ও প্রশস্ত করার জন্য একটি প্রকল্প অনুমোদন হওয়ায় ৩ জুলাই বিকেলে রুস্তম আলী ফরাজীকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সাংসদের সংবর্ধনার পরদিন উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুসারী উপজেলা আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা মিছিল-সমাবেশ করেন সাংসদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ এনে মিছিল-সমাবেশ করেন।

উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জুলহাস শাহীন বলেন, রুস্তম আলী ফরাজী সুবিধাবাদী। তিনি আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সমালোচনা করেন। আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নের কৃতিত্ব তিনি নিজের বলে দাবি করেন।

রুস্তম আলী ফরাজী আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সমালোচনা করার কথা অস্বীকার করেন।

পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, সাংসদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সম্পর্ক দিন দিন অবনতি হচ্ছে। এর ফলে যেকোনো সময় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার আশঙ্কা করা হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার জন্য পুলিশ সতর্ক রয়েছে। [সূত্র : দৈনিক প্রথম আলো অনলাইন]

 

Comments

comments

Check Also

মঠবাড়িয়ায় গাঁজাসহ আটক-২

স্টাফ রিপোর্টারঃ পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় আব্দুল কাদের (১৯) ও শাওন (২৫) নামে দুই জনকে গাঁজাসহ আটক করেছে …

মঠবাড়িয়ায় কাঁচা রাস্তা পাকা করণের দাবিতে মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার বান্ধাঘাটা-বলেশ^র সড়ক সংলগ্ন সুধীর হালদার বাড়ি থেকে কাটাখাল – …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!