মঙ্গলবার , সেপ্টেম্বর ২২ ২০২০
Breaking News

পদ্মা সেতুর ২২৫০ মিটার দৃশ্যমান : বসল ১৫তম স্প্যান

মঠবাড়িয়া প্রতিদিন ডেস্ক : শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তের ২৩ ও ২৪ নম্বর পিলারের ওপর পদ্মা সেতুর ১৫তম স্প্যান ‘৪-ই’ বসানো হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে জাজিরা প্রান্তে সেতুর ২৩ ও ২৪ নম্বর পিলারের ওপর স্প্যানটি স্থাপনের মাধ্যমে সেতুর মূল অবকাঠামো দৃশ্যমান হলো ২ হাজার ২৫০ মিটার (২.২৫ কিলোমিটার)। এক সপ্তাহ আগে এ স্প্যানটি বসানোর তারিখ নির্ধারণ থাকলেও নাব্য সঙ্কটের কারণে বিলম্বিত হয়। অবশেষে মঙ্গলবার স্প্যানটি বসানো সম্ভব হয়েছে।

জানা গেছে, দুই পিলারের মধ্যবর্তী সুবিধাজনক স্থানে ভাসমান ক্রেনটিকে নোঙর করা হয়। এরপর পজিশনিং করে ইঞ্চি ইঞ্চি মেপে স্প্যানটিকে তোলা হয় পিলারের উচ্চতায়। রাখা হয় দুই পিলারের বেয়ারিংয়ের ওপর। স্প্যান বসানোর জন্য উপযোগী সময় এবং সব ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ায় প্রকৌশলীরা স্প্যানটি বসাতে সক্ষম হন।

বর্ষা মৌসুম ও নাব্য সঙ্কটের কারণে তিন মাসের বেশি সময় ধরে পদ্মা সেতুতে কোনো স্প্যান বসানো সম্ভব হয়নি। ড্রেজিং করেও অনুকূল পরিবেশ তৈরি করা যাচ্ছিল না। কয়েকদিন আগে স্প্যান বসানোর কার্যক্রম শুরু হলেও নাব্য সঙ্কট বাধা হয়ে দাঁড়ায়। ড্রেজিং করে পলি অপসারণ করেও অনুকূল পরিবেশ তৈরি করা সম্ভব হচ্ছিল না। অবশেষে নানা বাধাবিপত্তি পেরিয়ে স্প্যানটি বসানো সম্ভব হয়। ১৪তম ú্যান বসানোর ৩ মাস ২৩ দিনের মাথায় স্থায়ীভাবে বসল ১৫তম স্প্যান।

এর আগে সোমবার সকালে জাজিরা প্রান্তের চর এলাকা থেকে ‘৪-ই’ স্প্যানকে ভাসমান ক্রেনের মাধ্যমে ২৮ ও ২৯ নম্বর পিলারের সামনে নোঙর করে রাখা হয়।

পদ্মা সেতুর প্রকৌশল সূত্রে জানা যায়, ড্রেজিং করেও স্বাভাবিক অবস্থানে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হচ্ছে না। পলি অপসারণ করার ১ থেকে ২ ঘণ্টা পরেই আবার আগের অবস্থায় ফিরে আসছে নদীর তলদেশ। ধূসর রঙের ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যরে ও ৩ হাজার ১৪০ টন ওজনের স্প্যানটিকে ৩ হাজার ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার ‘তিয়ান ই’ ক্রেন বহন করে আনতে নাব্য সঙ্কট বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল।

প্রকৌশলীরা জানান, ইতোমধ্যে পদ্মা সেতুর আরও ৩টি স্প্যান প্রস্তুত হয়ে আছে। নাব্য সঙ্কটের কারণে স্প্যানগুলো বসাতে দেরি হচ্ছে। সেতুর ১৯, ২০, ২১, ২২ ও ২৩ নম্বর পিলারের ওপর চারটি স্প্যান বসানোর পরিকল্পনা আছে চলতি বছরের মধ্যে। সর্বশেষ ২৯ জুন মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে ১৫ ও ১৬ নম্বর পিলারের ওপর বসে ‘৩ সি’ নম্বরের চতুর্দশ স্প্যানটি ।

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে এ সেতুর কাঠামো।

 

Comments

comments

Check Also

করোনা তহবিলে টাকা দেয়া শেরপুরের সেই ভিক্ষুক পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর উপহার

মঠবাড়িয়া প্রতিদিন ডেস্ক : শেরপুরে কর্মহীনদের জন্য ১০ হাজার টাকা অনুদান দেয়া ভিক্ষুক নজিম উদ্দিন …

করোনার মূল উৎপত্তি কোথায় জানাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

মঠবাড়িয়া প্রতিদিন ডেস্ক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস কোথা থেকে এসেছে তা প্রমাণাদি বিশ্লেষণ করে জানিয়েছে বিশ্ব …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!