মঠবাড়িয়াশনিবার , ১১ নভেম্বর ২০১৭
  1. আন্তর্জাতিক
  2. ইতিহাস-ঐতিহ্য
  3. খেলাধুলা
  4. জাতীয়
  5. প্রতিবেদন
  6. ফটো গ্যালারি
  7. বিচিত্র খবর
  8. বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি
  9. বিনোদন
  10. ভিডিও গ্যালারি
  11. মঠবাড়িয়ার খবর
  12. মতামত
  13. মুক্তিযুদ্ধ
  14. রাজনৈতিক খবর
  15. শিক্ষাঙ্গন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জেডিসি পরীক্ষার্থীকে উদ্ধার করলেন মঠবাড়িয়ার ইউএনও

Mathbariaprotidin
নভেম্বর ১১, ২০১৭ ৫:০৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোটা : পরীক্ষা বন্ধ রেখে বাল্য বিয়ের শিকার সেই জেডিসি পরীক্ষার্থীকে শনিবার দুপুরে বখাটের বাড়ি থেকে উদ্ধার করে বাবা-মায়ের কাছে হস্তান্তর করলেন মঠাবাড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। গতকাল শুক্রবার (১০ নভেম্বর) দৈনিক অনলাইন পত্রিকা মঠবাড়িয়া প্রতিদিন “ইউপি চেয়ারম্যান অভিভাবক হয়ে বাল্য বিয়ে দিলেন জেডিসি পরীক্ষার্থীকে” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ  ও রাতে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা এবং নারীর মানবাধিকার সংগঠন স্টেপস্ এর মাঠ সমন্বয়কারীর ফোন পেয়ে  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জি.এম. সরফরাজ, প্রেস ক্লাবের সভাপতি আবদুস সালাম আজাদী, মঠবাড়িয়া থানার উপ-পরিদর্শক শাহনাজ পারভীন, নারীর মানবাধিকার সংগঠন স্টেপস্ এর মাঠ সমন্বয়কারী ইসরাত জাহান মমতাজ ঘটনাস্থল উপজেলার দক্ষিণ বড়মাছুয়া বখাটে রাসেলের বাড়িতে যান। পরে সেই ইউপি চেয়ারম্যান নাছির উদ্দিনকে ডেকে পরীক্ষার্থী মারুফাকে উদ্ধার করে একই গ্রামের তার দিন মজুর পিতা রুহুল আমিন মৃধার কাছে হস্তান্তর করেন। এ সময় বড়মাছুয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষকদের ডেকে পরীক্ষার্থী মারুফা যাতে বাকী পরীক্ষা কেন্দ্রে গিয়ে দিতে পারে তার নির্দেশ দেন।


উল্লেখ্য, উপজেলার দক্ষিণ বড়মাছুয়া গ্রামের দিনমজুর রুহুল আমিন মৃধার মেয়ে ও  বড়মাছুয়া দাখিল মাদ্রাসা ছাত্রী মারুফা আক্তার জেডিসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেন (যার রোল ৩০৫৪০৬, রেজি নং ১৭১৮৭৫০৭০৫)। প্রতিবেশী শাহজাহান হাওলাদারের বখাটে পুত্র মটরসাইকেল চালক রাসেল দীর্ঘদিন ধরে তার মেয়েকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এতে সে রাজী না হওয়ায় গত মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) গভীর রাতে ওই মেয়ের বসত ঘরে ঢুকে পড়ে। বিষয়টি তিনি থানা পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বখাটে রাসেল ও ওই শিক্ষার্থীকে বুধবার ভোর রাতে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। পরে থানা পুলিশ রাসেল ও মারুফাকে স্থানীয় ইউ,পি চেয়ারম্যানের জিম্মায় ছেড়ে দেয়। ইউপি চেয়ারম্যান নাছির উদ্দিন মেয়ের বাবা-মা ও পরিবারের অমতেই নিজে অভিভাবক সেজে স্থানীয় বাজার জামে মসজিদের ঈমাম আবু সুফিয়ানকে ডেকে বখাটের সাথে ওই ছাত্রীর বিয়ে দেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জি.এম. সরফরাজ জানান, বিষয়টি পত্রিকায় প্রকাশের পর আমার দৃষ্টি গোচর হলে মেয়েটিকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করি এবং পরবর্তী পরীক্ষায় অংশগ্রহণের ব্যবস্থা করি। তিনি আরও জানান, জেলা প্রশাসকের অনুমতিক্রমে চেয়াম্যানকে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেয়া হচ্ছে।

 

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।
error: Content is protected !!