মঠবাড়িয়াসোমবার , ৬ জানুয়ারি ২০২০
  1. আন্তর্জাতিক
  2. ইতিহাস-ঐতিহ্য
  3. খেলাধুলা
  4. জাতীয়
  5. প্রতিবেদন
  6. ফটো গ্যালারি
  7. বিচিত্র খবর
  8. বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি
  9. বিনোদন
  10. ভিডিও গ্যালারি
  11. মঠবাড়িয়ার খবর
  12. মতামত
  13. মুক্তিযুদ্ধ
  14. রাজনৈতিক খবর
  15. শিক্ষাঙ্গন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

অসময়ের বৃষ্টিতে মঠবাড়িয়ায় পানির নিচে পাকা ধান : রবিশস্যের ব্যাপক ক্ষতি

Mathbariaprotidin
জানুয়ারি ৬, ২০২০ ১০:৫৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় পৌষ মাসের অসময়ের বৃষ্টির পানিতে ডুবে গেছে পাকা আমন ধান এবং রবিশস্যের ক্ষেত। উপজেলার বিস্তৃত ধানক্ষেতে এখন শুধু পাকা আমন ধানের সমারোহ। কৃষকরা ধান কেটে ঘরে তুলতে ব্যস্ত। হঠাৎ গত ৩ দিনের গুড়ি গুড়ি ও টানা বৃষ্টিতে তছনছ হয়ে গেছে কৃষকের স্বপনের সাজানো ফসলের ক্ষেত। সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে নেয়া ঋণের টাকা পরিশোধের চিস্তায় কৃষকরা দু’চোখে ঘোর অন্ধকার দেখছেন।
উপজেলা কৃষি অফিস থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, চলতি আমন মৌসুমে উপজেলায় ২০ হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে আমন (উফসী এবং স্থানীয়) আবাদ হয়েছে। ৫০ ভাগ ধান এখন পর্যন্ত কৃষকরা ঘরে তুলেছেন। বাকি ৫০ ভাগ পাকা ধান মাঠে আছে। এই ৫০ ভাগের কিছু ধান কেটে শুকাবার জন্য কৃষকরা মাঠে পাঁজা করে রেখে দিয়েছেন। কাটা ধানের সাথে না কাটা পাকা ধানগাছ মাটিতে লুটিয়ে পড়ে বৃষ্টির পানিতে ডুবে যাওয়ায় কৃষকরা ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছেন।
বড় শৌলা গ্রামের কৃষক শাহ আলম আকন (৫২) জানান, তার প্রায় দেড় একর জমির পাকা আমন ধান বৃষ্টির পানিতে ডুবে যাওয়ায় প্রায় অর্ধলক্ষ টাকার ক্ষতি হবে। নাগ্রাভাঙ্গা গ্রামের বর্গা চাষি মোঃ ফারুক হাওলাদার (৫৫) জানান, বৃষ্টিতে তার প্রায় ২ একর জমির পাকা ধানগাছ মাটিতে শুয়ে পড়ায় পানিতে ভাসছে। ২টি এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে চাষ করা ধান পানিতে ডুবে যাওয়ায় ঋণের কিস্তি পরিশোধের চিন্তায় ফারুক দু’চোখে অন্ধকার দেখছেন বলে জানান।
এ ছাড়া বৃষ্টিতে রবিশস্যের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিসের সূত্র মতে, এ বছর ৩ হাজার ১৫৬ হেক্টর জমিতে আবাদকৃত রবিশস্য অসময়ের বৃষ্টিতে প্রাথমিক মতে প্রায় ৮০ ভাগ বিনষ্ট হয়ে গেছে। নাগ্রাভাঙ্গা গ্রামের বর্গা চাষি আঃ হামিদ মোল্লা (৫৫) জানান, ৩৩ শতক জমিতে ৫ হাজার টাকার করল্লা ও ঢেঁড়সসহ বিভিন্ন বীজ কিনে চাষ করেছিলেন। বৃষ্টিতে সম্পূর্ণ ক্ষেত পানিতে ডুবে নষ্ট হয়ে গেছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাজিরা খাতুন জানান, হঠাৎ বৃষ্টিতে মাঠে থাকা আমন ধানের কিছু ক্ষতি হয়েছে। আর রবিশস্যের যে ক্ষতি হয়েছে তা মৌসুমের যে সময় আছে তাতে কৃষকরা কাটিয়ে উঠতে পারবেন।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।
error: Content is protected !!