,

শিরোনাম :

মঠবাড়িয়ায় স্ত্রী ও কন্যাকে হত্যার দায়ে একজনের ফাঁসির আদেশ

স্টাফ রিপোর্টার : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় স্ত্রী নাজমা আক্তার (৩০) ও ছয় মাসের শিশু কন্যা রাবেয়া আক্তার মিষ্টিকে কুপিয়ে হত্যার দায়ে স্বামী সিরাজুল হক আকনকে (৫০) ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। বুধবার বিকালে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারিক হাকিম মো. শামসুল হক এ রায় প্রদান করেন। এ সময় আদালত তাকে ৫০ হাজার টাকার জরিমানার আদেশ প্রদান করেন। ফাঁসির দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত সিরাজুল হক উপজেলার উত্তর মিরুখালী গ্রামের মৃত জবেদ আলী আকনের পুত্র। রায় প্রদানের সময় দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সিরাজুল হক আকন আদালতে অনুপস্থিত ছিল। কুপিয়ে হত্যা করা স্ত্রী নাজমা আক্তার উপজেলার বাদুরা গ্রামের আ. রব ফরাজীর মেয়ে।
আদালত সূত্রে জানা গেছে, আসামি সিরাজুল ইসলাম তার স্ত্রী নাজমা বেগমের নামে রাখা তিন কাঠা জমি বিদেশ যাওয়ার উদ্দেশ্যে বিক্রি করতে চায়। আর এ জন্য তার ভগ্নিপতি উপজেলার উত্তর মিরুখালী গ্রামের মো. আফজাল হোসেনের বাড়িতে যায়। সেখানে বসে ওই জমি বিক্রির ঘটনা নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। এ ঘটনায় ২০০৩ সালের ৯ নভেম্বর সন্ধ্যা ৭টার দিকে স্ত্রী নাজমা বেগম তার কোলে থাকা ৬ মাসের শিশু কন্যাকে নিয়ে ওই বাড়ি থেকে পিতার বাড়ি উপজেলার বাদুরা গ্রামে চলে আসতে শুরু করলে ভগ্নিপতির বাড়ির ৫০০ গজ দূরে আসে। এ সময় পিছন থেকে স্বামী সিরাজুল ইসলাম স্ত্রী নাজমা ও তার কোলে থাকা ছয় মাসের শিশু কন্যা রাবেয়া আক্তার মিষ্টিকে বেদমভাবে কুপিয়ে হত্যা করে সেখানে ফেলে রেখে যায়। পরের দিন রাস্তার পাশ থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
এ ঘটনায় নিহতের পিতা আ. রব ফরাজী বাদী হয়ে মঠবাড়িয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে আসামির অনুপস্থিতিতে বিচারক এ রায় প্রদান করেন।

 

0Shares

Comments

comments