,

শিরোনাম :

মঠবাড়িয়ায় নির্বাচনী সহিংসতা : স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

স্টাফ রিপোর্টার : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় নির্বাচনী সহিংসতায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা জনি তালুকদার (২৫) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (২৫ মার্চ) দুপুরে বরিশাল শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। নিহত জনি তালুকদার উপজেলার গুলিসাখালী ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি ও হলতা গুলিশাখালী ইউনিয়নের (২নং ওয়ার্ড) গুলিশাখালী গ্রামের মৃত হাতেম আলী তালুকদারের ছেলে।

স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী রিয়াজ উদ্দিন (আনারস প্রতীক) জানিয়েছেন, জনি তার কর্মী ছিলেন। তার দাবি, উপজেলা নির্বাচনে তার প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হোসাইন মোশাররফ সাকুর কর্মীরা জনিকে হত্যা করেছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সোমবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে জনি তালুকদার কবুতরখালী গ্রামের বাড়ি থেকে গুলিশাখালী বাজারে যাবার পথে ১৫/২০জন তাকে ধাওয়া করে মাঠের মধ্যে ফেলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলাপাতারি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে পালিয়ে যায়।পরে স্থানীয়রা দ্রুত তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে বরিশাল শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। তবে সেখানে নেওয়ার আগেই পথেই দুপুর ১ টার দিকে তাঁর মৃত্যু হয়।
এ বিষয়ে মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শওকত আনোয়ার জানান, এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহত পরিবারের পক্ষ হতে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এদিকে সহিংসতা এড়াতে মঠবাড়িয়ায় পুলিশী টহল জোরদার করা হয়েছে। পিরোজপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ সালাম কবির সোমবার বিকেলে ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেন।
এর আগে গত শনিবার (২৩ মার্চ) আওয়ামী লীগের প্রার্থী হোসাইন মোশারেফ সাকু ও গুলিসাখালী ইউপি চেয়ারম্যান উপজেলা আ’লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজুল আলম ঝনোসহ প্রায় ২০ জন কর্মী-সমর্থক আহত হন। তার পক্ষের নেতাদের অভিযোগ, এই নির্বাচনে আওয়ামী স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের মো. রিয়াজ উদ্দিনের কর্মী-সমর্থকরা এই হামলা চালিয়েছেন।
এ ঘটনার জের ধরেই সোমবার জনি তালুকদারের ওপর হামলা চালানো হয়।
উল্লেখ্য, আগামী ৩১ মার্চ চতুর্থ ধাপের উপজেলা নির্বাচনে মঠবাড়িয়াতেও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

 

0Shares

Comments

comments