,

শিরোনাম :
«» মঠবাড়িয়ায় রাস্তার পাশে লাইসেন্স ছাড়া পেট্রল ও এলপি গ্যাস বিক্রি, ব্যবসায়ীর জরিমানা «» মঠবাড়িয়ায় অবরোধকালীন সময় সংশোধনের দাবিতে জেলেদের মানববন্ধন «» মঠবাড়িয়ায় জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ শুরু «» মঠবাড়িয়ায় নুসরাত হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন «» মঠবাড়িয়ায় ক্যান্সার আক্রান্ত জান্নাতিকে অর্থ সহায়তা প্রদান «» মঠবাড়িয়ায় বৈশাখী মেলায় নিখোঁজ হওয়া স্কুল ছাত্র নয়নের ৮ দিনেও সন্ধান মেলেনি «» মঠবাড়িয়ায় ইভটেজিং এর দায়ে দপ্তরীর অর্থদন্ড «» নুসরাত হত্যার সর্বোচ্চ বিচার চেয়ে মঠবাড়িয়ায় মানববন্ধন «» আ: ছত্তার আকনের ইন্তেকাল «» মঠবাড়িয়ায় মৎস্য অফিসের ক্ষেত্র সহকারীর অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন

আজ বিজয়ের দিন, আজ মঠবাড়িয়া প্রতিদিনের পঞ্চম বর্ষপূর্তি

জহিরুল ইসলাম : বাঙালি জাতির জীবনে আজ এক আনন্দের দিন। বহু কাক্সিক্ষত এই দিনটির দেখা মিলেছিল নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ শেষে ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর। ঢাকার ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে এদিন বর্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পণ করেছিল বিজয়ী বীর বাঙালির সামনে। পৃথিবীর মানচিত্রে অভ্যুদয় ঘটেছিল স্বাধীন বাংলাদেশের।

দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদের আত্মত্যাগ ও দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত এই বিজয়ের দিনটিতে আনন্দের পাশাপাশি বেদনাও বাজবে বাঙালির হৃদয়ে। বিনম্র শ্রদ্ধা ও গভীর কৃতজ্ঞতায় জাতি স্মরণ করবে জানা-অজানা সেসব শহীদকে। আজ সকাল থেকেই সারা দেশের পথে পথে নামবে উৎসবমুখর মানুষের ঢল। শহীদদের স্মরণ করে তারা বিন¤্র শ্রদ্ধায় দেশের সব স্মৃতিসৌধ ও শহীদ মিনারগুলো ভরিয়ে দেবে ফুলে ফুলে। শ্রদ্ধার ফুলে ঢেকে যাবে সৌধের বেদি। লাল-সবুজ পতাকা উড়বে আজ বাড়িতে ও গাড়িতে, সব প্রতিষ্ঠানে। পতাকার রঙের পোশাকও থাকবে উৎসবে শামিল অনেকের পরনে। বিজয়ের এই দিনে মঠবাড়িয়া প্রতিদিনের পক্ষ থেকে মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারীদের প্রতি জানাই গভীর শ্রদ্ধা। এ ছাড়া মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিকামী বাঙালিদের প্রতি জানাই লাল সালাম।

আজ মঠবাড়িয়া প্রতিদিনেরও একটি বিশেষ দিন। ২০১৩ সালের এই দিনে আলোর পথে যাত্রা শুরু করেছিল মঠবাড়িয়া প্রতিদিন নামে একটি অনলাইন নিউজ পত্রিকা। দেখতে দেখতে পাঁচ পাঁচটি বছর অতিক্রম করে আজ পত্রিকাটি পা রাখছে ছয় বছরে। পাঁচ বছর একটি জাতির জন্য খুব কম সময় হলেও মঠবাড়িয়া প্রতিদিনের জন্য কম সময় নয়। নানা চড়াই-উতরাই পারি দিয়ে মঠবাড়িয়ার মতো একটি উপজেলাকে কেন্দ্র করে এরকম একটি অনলাইন পত্রিকার টিকে থাকা চাট্টিখানি কথা নয়। কণ্টকাকীর্ণ পথ পাড়ি দিয়ে আজও মঠবাড়িয়া প্রতিদিনের টিকে থাকার জন্য আমরা ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই সম্মানিত পাঠকদের। তাদের আগ্রহের কারণেই আমাদের পক্ষে এই পত্রিকাটির প্রতি নিরলম শ্রম দিতে পেরেছি। এই যাত্রায় প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক হিসেবে আমি কৃতজ্ঞতা জানাই এর প্রতিষ্ঠালগ্নের বার্তা সম্পাদক, দক্ষিণাঞ্চলের স্বনামধন্য সংবাদকর্মী দেবদাস মজুমদারের প্রতি। এরপরই আমি কৃতজ্ঞ পত্রিকাটির বর্তমান সম্পাদক, দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞ সংবাদকর্মী এবং মঠবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আবদুস সালাম আজাদীর প্রতি, যিনি গত পাঁচ বছর ধরে অনলাইন পত্রিকাটির জন্য নিয়মিত সময় দিয়ে যাচ্ছেন। আমি আরও কৃতজ্ঞতা জানাই মঠবাড়িয়া প্রতিদিনের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক এবং মঠবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান, মঠবাড়িয়া প্রতিদিনের সহকারী সম্পাদক জনাব মিজানুর রহমান নয়ন, সিনিয়র রিপোর্টার মেহেদী হাসান, ইসরাত জাহান মমতাজ এবং শাকিল আহমেদের প্রতি। এদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কারণেই মঠবাড়িয়া প্রতিদিন তার অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারছে।

আমাদের এত এত পরিশ্রমের পরও মঠবাড়িয়া প্রতিদিন পাঠক ও শুভানুধ্যায়ীদের পাঠতৃষ্ণা মিটাতে পেরেছে এমন দাবি করব না। তবু তারা যে এতদিন ধরে মঠবাড়িয়া প্রতিদিনের ভুবনে বিচরণ করছেন এজন্য তাদের প্রতি আরেকবার আন্তরিক শুভেচ্ছা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

সবাইকে আরেকবার বিজয়ের শুভেচ্ছা।

 

জহিরুল ইসলাম : প্রতিষ্ঠাতা ও প্রতিষ্ঠাকালীন সম্পাদক, মঠবাড়িয়া প্রতিদিন; বিভাগীয় প্রধান, সম্পাদনা বিভাগ, দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ।

Comments

comments